রতন নয়,রত্ন

‘কি গো দাদাবাবু আমায় ডাকচো ‘
তেরো বছরের রতনের গলার স্বর
মায়ামাখানো বাল্য কন্ঠস্বর—।
এ যুগের রতনেরা প্রতিবাদী হয়ে ওঠার আগেই স্বর টিপে
শৈশবেই যৌবনের বাঁচার মন্ত্র শেখে
নইলে বাঁচবে কি করে—?
স্নেহ,প্রেম, ভালোবাসাময়
রতনেরা আর জন্মায় না।
ভয়ংকরী অস্ত্র হাতে জ্বালাময়ী বক্তৃতাতে নারী
“রতন”হয় না, ‘রত্ন’ হয় ঠিক নীলার মতো।
বসন্তের প্রেমেও জটিলতা
রাবীন্দ্রিক প্রেম পায় না পূর্ণতা। গভীর অনুভূতির অন্বেষণে
‘রতন’চরিত্র খোঁজা আজ ব্যর্থ।
ক্রোধে পদ্যরা গদ্যে পরিণত
সুন্দর ডাক, কন্ঠস্বর মধুর নয়
হিংস্র, কর্কশ তেজস্বীময়,
প্রেম, ভালোবাসা নিছকই মিথ্যা মনে হয়।।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top